অনলাইনে স্বাস্থ্য সেবা প্রদান করার নির্ভরযোগ্য একটি প্রতিষ্ঠান।

মিষ্টি কুমড়ার যত গুণ ।

মিষ্টি কুমড়ার উপকারিতা ।

0

মিষ্টি কুমড়া পছন্দ করে না এমন মানুষ খুব কমই আছে । মিষ্টি কুমড়ার বিভিন্ন রেসিপি আমাদের অনেকেরই জানা । আসুন জেনে নেওয়া যাক মিষ্টি কুমড়ার কি কি গুনাগুন রয়েছে ।
সুস্বাদু মিষ্টি কুমড়া আমাদের খুব প্রিয়। এই সবজিতে রয়েছে ভিটামিন-এ, বি-কমপ্লেক্স,ভিটামিন-সি,ভিটামিন-ই, পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, আয়রন, জিংক, ফ্লেভনয়েড পলি-ফেনলিক উপাদান সমূহ ছাড়াও মানব দেহের নানা ধরনের পুষ্টির যোগান দিয়ে থাকে।

মিষ্টি কুমড়ার অবিশ্বাস্য স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে জানুন :

১। চোখের সুরক্ষায়ঃ মিষ্টি চোখের সুরক্ষায় খুবই ভাল একট সবজি । মিষ্টি কুমড়ায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-এ উপাদান থাকে যা চোখের কর্নিয়াকে সুরক্ষিত রাখতে সহায়তা করে থাকে ।

২। দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করেঃ মিষ্টি কুমড়া হলো বিভিন্ন ধরণের ভিটামিনের ভাণ্ডার। এতে আছে প্রচুর পরিমানে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন-এ, সি, ই, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম এবং আরও অনেক ধরনের উপাদান রয়েছে । যা টিস্যুকে রক্ষা করতে সাহায্য করে ।

৩। ওজন কমাতে সহায়কঃ-মিষ্টি কুমড়াতে ক্যালরির পরিমাণ অনেক কম। কিন্তু এতে প্রচুর পরিমানে ফাইবার ও পটাশিয়াম আছে। মিষ্টি কুমড়ার ফাইবার দেহের ক্ষুধা নিয়ন্ত্রণ করে। পটাশিয়াম দেহ থেকে অপ্রয়োজনীয় পানি ও লবণ বের করে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

৪। হজম শক্তি বৃদ্ধি করেঃ পুষ্টি ও ফাইবারে ভরপুর মিষ্টি কুমড়া খেলে দেহের হজম শক্তি বৃদ্ধি পায়। মিষ্টি কুমড়া দেহের কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে থাকে। ডায়রিয়া সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে এবং কাঁচা মিষ্টি কুমড়ার রস মানব দেহের অ্যাসিডিটি সমস্যা রোধ করতে সাহায্য করে ।

৫। উচ্চ রক্তচাপ কমায়ঃ মিষ্টি কুমড়াতে প্রচুর পরিমানে পটাশিয়াম উপাদান আছে, যা মানবশরীরে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। ভিটামিন-সি ও রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করে থাকে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.