অনলাইনে স্বাস্থ্য সেবা প্রদান করার নির্ভরযোগ্য একটি প্রতিষ্ঠান।

তুলসী গাছের নানা ঔষধি ব্যবহার

0

পৃথিবীতে এমন কোন উদ্ভিদ নেই যা মানুষের উপকারে আসে না। প্রতিটি উদ্ভিদই প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ; কোননা কোন ভাবে মানুষের উপকারে আসে। চলুন আজ জেনে আসি তুলসীগাছ সম্পর্কে। তুলসী(ইংরেজি: holy basil বা Tulsi)
(বৈজ্ঞানিক নাম:Ocimum tenuiflorum) একটি ঔষধিগাছ। তুলসী অর্থ যার তুলনা নেই। তুলসী গাছ লামিয়াসি পরিবারের অন্তর্গত একটি সুগন্ধী উদ্ভিদ। হিন্দু সম্প্রদায়ের কাছে এটি একটি পবিত্র উদ্ভিদ হিসাবে সমাদৃত। ব্রহ্মকৈবর্তপুরাণে তুলসীকে ‘সীতাস্বরূপা’, স্কন্দপুরাণে ‘লক্ষীস্বরূপা’, চর্কসংহিতায় ‘বিষ্ণুপ্রিয়া’, ঋকবেদে ‘কল্যাণী’ বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। তুলসী ,Ocimum tenuiflorum

শ্রেণীবিন্যাস :
জগৎঃ Plantae
শ্রেণিঃ (শ্রেণীবিহীন Asterids)
বর্গঃ lamiales
পরিবারঃ Lamiaceae
গণঃ Ocimum
প্রজাতিঃ tenuiflorum
দ্বিপদ নামঃ Ocimum tenuiflorum
তুলসী একটি ঘন শাখা প্রশাখা বিশিষ্ট দুই বা তিন ফুট উঁচু একটি চিরহরিৎ গুল্ম। এর মূল কাণ্ড কাষ্ঠল, পাতা দুই থেকে চার ইঞ্চি লম্বা হয়। পাতার কিনারা খাঁজকাটা, শাখাপ্রশাখার অগ্রভাগ হতে ৫ টি পুষ্পদণ্ড বের হয় ও প্রতিটি পুষ্পদণ্ডের চারদিকে ছাতার আকৃতির মত দশ থেকে বিশ টি স্তরে ফুল থাকে। প্রতিটি স্তরে ছয়টি করে ছোট ফুল ফোটে। এর পাতা, ফুল ও ফলের একটি ঝাঁঝাল গন্ধ আছে।
ব্যবহারঃ
তুলসী গাছের নানা ঔষধি ব্যবহার রয়েছে। সর্দি, কাশি, ঠাণ্ডা লাগা ইত্যাদি নানা সমস্যায় তুলসী ব্যবহার করা হয়। এ গাছের রস কৃমি ও বায়ুনাশক। ঔষধ হিসাবে এই গাছের ব্যবহার্য অংশ হলো এর রস, পাতা এবং বীজ। বাংলাদেশে যে চার প্রকার তুলসী গাছ দেখা যায় সেগুলি হলো: বাবুই তুলসী, রামতজলসী, কৃষ্ণ তুলসী ও শ্বেত তুলসী।
সম্পাদনায় : তরিত বর্মণ ।

Leave A Reply

Your email address will not be published.